More
    Home কলমেই মুক্তি বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে

    বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে

    মোঃ ইউনুছ : প্রাথমিক শিক্ষা বলতে আমরা বুঝি একজন শিশুর প্রারম্ভিক জীবনের অথবা শৈশবের শিক্ষা ৷ প্রতিবন্ধকতা বলতে বোঝায়, যে সকল বাধা-বিপত্তি একজন শিশুর শৈশবের শিক্ষা ও মানসিক বিকাশ এর পথে অন্তরায় হয়ে দাড়ায় ৷ শিশুর প্রাথমিক শিক্ষাটা শুরু হয় মূলত পারিবারিক শিক্ষা থেকে ৷ মায়ের মুখ থেকে যখন একজন শিশু ‘অ’ ‘আ’ বলতে শিখে, তখন থেকেই শুরু হয় একজন শিশুর প্রাথমিক শিক্ষার পথচলা ৷

    প্রাথমিক শিক্ষার প্রথম প্রতিবন্ধক হতে পারে –

    ১৷ পরিবারিক সচেতনতার অভাব

    অধিকাংশক্ষেত্রে পরিবারিক অসেচতনতাই হতে পারে প্রথম প্রতিবন্ধক , যদি পরিবার প্রাথমিক শিক্ষার সুফল সম্পর্কে হয় অসেচেতন ৷ তাই প্রতিটি পরিবার়ে  শিক্ষার সুফল সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে ৷ জনসচেতনতা তৈরি করার লক্ষ্যে ইউনিয়ন পরিষদ ও গ্রাম পর্যায়ের স্বেচ্ছাসেবকদের এগিয়ে আসতে হবে ৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলিতে বিভিন্ন শিশুতোষ ধারাবাহিক নাটক ,ও বিভিন্ন কর্মশালা এর মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্ব সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে ৷

    ২৷ শিক্ষা পদ্ধতি ভীতি 

    প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক হলো শিক্ষাপদ্ধতি ও পাঠদান পদ্ধতি ভীতি ৷ প্রাথমিক শিক্ষাকে সহজ ,সাবলীল ও সৃজনশীল করে তুলতে হবে ৷ শিশুদের মেধাক্ষমতাকে মূল্যায়ন করে বই এর বোঝা কমাতে হবে ৷ পাঠ্যবই লিখনে কঠিন শব্দ পরিহার করে শিশুদের জন্যে বোধগম্য সহজ শব্দ ব্যবহার করতে হবে ৷ প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস নিশ্চিত করতে হবে ৷

    ৩৷ পরীক্ষা পদ্ধতি

    বর্তমান পরীক্ষাপদ্ধতি প্রাথমিক শিক্ষার একটি অন্তরায় ৷ অতিরিক্ত পরীক্ষা শিশুদের মনে শিক্ষা ও বিদ্যালয় এর প্রতি অনাগ্রহ ও ভয় সৃষ্টি করে ৷ সুতরাং ১ম শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ,প্রতি শ্রেণিতে কেবলমাত্র একটি করে  বার্ষিক পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে ৷ শিশু থেকে ৫ম শ্রেণিতে লিখিত পরীক্ষার পাশাপাশি মৌখিক পরীক্ষার সমন্বয় ঘটাতে হবে ৷ শুদ্ধ উচ্চারণ ,শুদ্ধ রিডিং পড়া ,এ সকল বিষয়ে মৌখিক পরীক্ষা নিতে হবে ৷অতিরিক্ত পরীক্ষা এর কারণে শিক্ষক পাঠ্য বই সম্পূর্ণভাবে শেষ করতে পারেন না ৷

    ৪৷ শিক্ষা উপকরণ এর মূল্য বৃদ্ধি

    শিক্ষা উপকরণ এর মূল্যবৃদ্ধি প্রাথমিক শিক্ষার একটি বিশেষ প্রতিবন্ধক ৷সুতরাং শিক্ষা উপকরণগুলির মূল্য হ্রাস করতে হবে ৷সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে বিনামূল্যে বই বিতরণ এর সাথে সাথে শিক্ষা সরঞ্জামও বিনামূল্যে বিতরণ করতে হবে ৷

    ৫৷ অনিয়ন্ত্রিত কিন্ডার গার্টেন

    যত্রতত্র অনিয়ন্ত্রিত কিন্ডার গার্টেন প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক ৷ এসকল বিদ্যালয়গুলিতে শিশুদেরকে পাঠ্য বই এর বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয় ৷এতে শিশুদের মনে শিক্ষার প্রতি ভয় ও অনাগ্রহ সৃষ্টি হয় ৷ কিন্ডার গার্টেনগুলি নিয়ন্ত্রণকরণে শিক্ষা আইন ও সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে ৷

    ৬৷ পূর্ণ যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষকের অভাব

    ২০১৩ সালের ন্যাশনাল স্টুডেন্ট অ্যাসেসমেন্ট অনুসারে, পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া প্রতি চারজন শিক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র একজন গণিত ও বাংলায় উপযুক্ত দক্ষতা অর্জন করেছে।

    ২০১১ সালে প্রাথমিক শেষ করা প্রতি দুইজন ছেলে শিক্ষার্থীর মধ্যে একজনেরও কম এবং প্রতি তিনজন মেয়ের মধ্যে একজনেরও কম কার্যত লেখাপড়া শিখেছে।

    কিন্তু প্রাথমিকে ভর্তির হার ৯৮ শতাংশ হলেও মাত্র ৬৭ শতাংশ বা তার চেয়ে কম হারে শিক্ষার্থী মাধ্যমিকের যোগ্যতা অর্জন করে। আর উচ্চ শিক্ষায় পৌঁছায় মাত্র ২২ শতাংশ শিক্ষার্থী। এর জন্যে মূলত দায়ী অদক্ষ শিক্ষক নিয়োগ ৷তাই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে দক্ষ শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে ৷ এবং শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করে ,তাদেরকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে ৷

    ৭৷ খাদ্য ও পুষ্টিহীনতা

    শিশুদের খাদ্য ও পুষ্টিহীনতা দূর করার লক্ষ্যে শিক্ষা ও খাদ্য কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে ৷ প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে শিশুদের বিস্কুট দেওয়া হলেও অসাধু শিক্ষকরাই বেশিরভাগ বিস্কুট এর প্যাকেট বাসায় নিয়ে যান৷

    ৮৷ বাল্যবিবাহ প্রবণতা

    বাল্যবিবাহ প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক ৷ ২০১৫ সালে ইউনিসেফের আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো বা বিবিএসের করা বহুমাত্রিক সূচক নির্ধারণে পরিচালিত গুচ্ছ জরিপ অনুযায়ী, ২০ থেকে ২৪ বছর বয়সী ৫২ শতাংশ নারীর ১৮ বছর পার হওয়ার আগেই বিয়ে হয়েছে। আর ১৫ বছর পার হওয়ার আগে বিয়ে হয়েছে ১৮ শতাংশের। সরকারিভাবে ৫২ শতাংশকেই বাল্যবিবাহের সর্বশেষ পরিসংখ্যান হিসাবে ধরা হচ্ছে।

    ৯৷ শিশুশ্রম 

    লেখাপড়ার বাইরে থাকা ছয় থেকে ১০ বছর বয়সী শিশুর সংখ্যা ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মধ্যেই খুব বেশি। এটাই বাংলাদেশের রাজধানীতে শিশু শ্রমের উপস্থিতির প্রমাণ দেয়।

    জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এবং আন্তর্জাতিক শ্রমসংস্থা আইএলও ১২ জুন বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে ‘কোভিড-১৯ ও শিশুশ্রম : সংকটের সময়, পদক্ষেপের সময়’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

    ওই প্রতিবেদন বলছে, ২০০০ সাল থেকে শিশু শ্রমের সংখ্যা ৯ কোটি ৪০ লাখে কমে আসলেও কোভিড-১৯ এর কারণে সেই অর্জন এখন ঝুঁকির মুখে পড়তে বসেছে। কোভিড-১৯ এর ফলে এ বছরেই ৬ কোটি মানুষ চরম দারিদ্র্যের মধ্যে পড়তে পারে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, দারিদ্র এক শতাংশ বাড়লে শিশুশ্রম অন্তত দশমিক ৭ শতাংশ বাড়বে।

    ১০৷ শিক্ষাঙ্গনে  নিরাপত্তার অভাব ও যৌন হয়রানি

    ২০১৯ সালে সারাদেশে ধর্ষণের ঘটনা আগের বছরের তুলনায় বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে বলে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। বেড়েছে শিশু নির্যাতনের হারও। ২০১৯ সালে শারীরিক নির্যাতন, ধর্ষণ, অপহরণ ও নিখোঁজের পর মোট ৪৮৭ জন শিশু নিহত হয়েছে। ২০১৮-তে এই সংখ্যা ছিল ৪১৯।

    প্রতিনিয়তই শিশুকামী বা পেডোফাইলদের হাতে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে কোমলমতি শিশুরা। প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক হলো চাইল্ড সেক্সুয়্যাল অ্যাবইউজ ৷

    ১১৷ যোগাযোগ ব্যবস্থা

    অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রাথমিক শিক্ষার পথে অন্তরায় ৷ গ্রামের শিশুদের দূরদূরান্ত পাড়ি দিয়ে স্কুলে যেতে হয় ৷ প্রতিটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফ্রি স্কুল ভ্যান ব্যবস্থা চালু করা হউক ৷

    ১২৷ কোচিং বাণিজ্য

    প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে বাণিজ্য ,পরীক্ষার পূর্বরাতে প্রশ্নপত্র ফাঁস , অভিভাবকদের কাজ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় ,প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক ৷

    ১৩৷  বিদ্যালয়ে খেলার মাঠের অভাব

    ঢাকা শহরের বিদ্যালয়গুলিতে সাধারণত কোনো খেলার মাঠ নেই ৷পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধুলা চর্চার ব্যবস্থা না থাকলে ,শিশুরা বিদ্যালয়়ে যাওয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে ৷

    ১৪৷ সাংস্কৃতিক ও বিনোদনমূলক  কার্যক্রম এর অভাব

    প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে সাংস্কৃতিক ও বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান এর আয়োজন করতে হবে ৷

    ১৫৷ প্রাথমিক শিক্ষাবাজেট 

    প্রাথমিক শিক্ষার হার বৃদ্ধির জন্যে প্রাথমিক শিক্ষার জন্যে উপযুক্ত শিক্ষাবাজেট বরাদ্দ করতে হবে ৷

    ১৬৷ দারিদ্র ও অভাব

    দারিদ্র ও অভাব প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক ৷ সমাজের ধনী ব্যক্তিদের গরীব শিক্ষার্থীদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে হবে

    ১৭৷ লৈঙ্গিক বৈষম্য

    আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় লিঙ্গগত বৈষম্য এখনও বিদ্যমান ৷ প্রাথমিক শিক্ষার ক্ষেত্রে নারী ও পুরুষকে সমান গুরুত্ব দিতে হবে ৷শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে সকল শিশুকে সমান গুরুত্ব দিতে হবে ৷

    ১৮৷ মাদকাসক্তি 

    মাদকাসক্তি প্রাথমিক শিক্ষার অন্যতম প্রতিবন্ধক ৷ আর্ন্তজাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) ও মোস্ট অ্যাট রিস্ক অ্যাডোলসেন্ট (এমএআরএ) নামের দুটি প্রতিষ্ঠানের ২০১২ সালের জরিপ অনুযায়ী, বাংলাদেশে চার লাখ ৪৫ হাজার পথশিশু আছে। এদের মধ্যে রাজধানীতে থাকে তিন লাখেরও বেশি পথশিশু। এদের বেশিরভাগই মাদকে আসক্ত ৷

    সরেজমিনে দেখা গেছে, ড্যান্ডি নামে নতুন ও সহজলভ্য মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে পথশিশুরা। ড্যান্ডি একধরনের আঠা, যা মূলত সলিউশন নামে পরিচিত। এতে টলুইন নামে একটি উপাদান আছে। টলুইন মাদকদ্রব্যের তালিকায় আছে। এটি জুতা তৈরি ও রিকশার টায়ার টিউব লাগানোর কাছে ব্যবহার করা হয়। এটি খেলে ক্ষুধা ও ব্যথা লাগে না। দীর্ঘমেয়াদে খেলে মস্তিষ্ক, যকৃত ও কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

    শুধু বস্তি বা পথশিশুই নয়, মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে সম্ভ্রান্ত পরিবারের শিশুরাও। সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজধানীর বনানী, গুলশান, ধানমন্ডির বেশ কয়েকটি খাবারের দোকানের আড়ালে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা সিসা গ্রহণ করে। গত বছরের ৩০ আগস্ট ধানমন্ডি ২৭ নম্বরে অবস্থিত এইএইচএফ ফুড অ্যান্ড লাউঞ্জ নামের একটি সিসা বারে অভিযান চালানো হয়। পরে ওই বার বন্ধ করে দেওয়া হয় । ছেলেশিশুদের পাশাপাশি বহু মেয়েশিশুও মাদকে আসক্ত। তবে সঠিক সংখ্যা অজানা।

    মাদক শিশুদের জন্য কেমন ক্ষতিকর, জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় মাদকাশক্তি নিরাময়কেন্দ্রের আবাসিক মনোরোগ চিকিৎসক আখতারুজ্জামান সেলিম বলেন, মাদক গ্রহণকারীর বয়স যত কম হবে, তার ক্ষতির পরিমাণ বেশি হবে। সে ক্ষেত্রে শিশুদের ক্ষতির পরিমাণ বেশি হয়। মাদক গ্রহণের কারণে তাদের সুষ্ঠু বিকাশ বিঘ্নিত হয়। পরিকল্পনা গ্রহণে সমস্যা হয়। লেখাপড়ার ক্ষতি হয়।

    ১৯৷ পর্নোগ্রাফি

    দৈনিক ভোরের কাগজের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, বর্তমান যুগে যোগাযোগের সহজমাধ্যম ইন্টারনেট। আর এ ইন্টারনেটেই যখন সহজ প্রবেশাধিকার দিয়ে ইনডেক্স করা ৪৫০ মিলিয়ন পর্নোগ্রাফিক সাইট তখন প্রিয় সন্তানের জন্য সমঝোদার অভিভাবকের উদ্ধিগ্নতা প্রশমিত করার যেন উপায় থাকে না।

    আর যখন পরিসংখ্যান বলে, ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ১৬ থেকে ১৯ বছর বয়সের ৩৮ ভাগই ইন্টারনেটে আসক্ত তখন অভিভাবকদের ভাবতে হয় অনেক কিছু। আর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের কারণে সম্পূর্ণ অপ্রতাশিতভাবে ৫-৭ বছরের ইন্টারনেট ব্যবহারকারী শিশুর ১২ শতাংশ এবং ৮-১৭ বছরের ১৬ শতাংশ শিশুর সামনে ইনডেক্স করা এই ৪৫০ মিলিয়ন পেইজগুলোর সাজেশন্স চলে আসে, শিশু মন পরিচিত হয় পর্নোগ্রাফি নামক ভয়াল মানসিক বিকারের সাথে, পরিসংখ্যানের এ তথ্যে প্রযুক্তিকে আর্শীবাদের চেয়ে অভিশাপই ঠেকে অভিভাবকদের কাছে।

    ২০৷ শিক্ষাসফর আয়োজন এর অভাব

    প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে প্রতিবছর সরকারি খরচে শিশুদের জন্যে  শিক্ষাসফরের আয়োজন করতে হবে ৷

    আজকের শিশুই আগামী দিনে দেশ গড়ার কারিগর ৷তাই শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণে এখনই সকলকে বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে ৷

    লেখক: মোঃ ইউনুছ, আইন বিভাগ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

    Most Popular

    মহেশপুরের সীমান্ত পথে ভারত থেকে বানের পানির মতো আসছে মাদবদ্রব্য

    ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্তের মতলার আইট গ্রামে অভিযান চালিয়ে ৫৮ বিজিবির সদস্যরা একশ বোতল ফেনসিডিলসহ চারজনকে আটক করেছে। তাদের কাছ থেকে বল্লম, হাসুয়া...

    সরকার নির্ধারিত দামে ব্যবসায়ীদের আলু-পেঁয়াজ বিক্রি করা উচিত: কৃষিমন্ত্রী

    ঢাকা, ২৪ অক্টোবর- কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক সরকার নির্ধারিত দামেই ব্যবসায়ীদের আলু-পেঁয়াজ বিক্রি করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, আমরা আলুর দাম কমিয়ে একটা...

    শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ করেছেন, হবিরবাড়ীতে সোহেল খান

    আরিফ রববানী, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ জেলা বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের সাধারন সম্পাদক, ভালুকা উপজেলার সাবেক ছাত্রনেতা, হবিরবাড়ী ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাবেক সভাপতি, ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়ন...

    ফুলবাড়ীতে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপে ৩ হাজার বিঘা জমির জলাবন্ধতা নিরসন

    মেহেদী হাসান উজ্জ¦ল, ফুলবাড়ী,দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ী ও দৌলতপুর ইউনিয়নের প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমিতে দীর্ঘদিন ধরে জলাবদ্ধতা নিরসনের ব্যবস্থা করেছেন দিনাজপুরের...