More
    Home সারাদেশ করোনায় আক্রান্ত নার্স দিয়েই চলছে রোগীর সেবা :- দেখার কেউ নেই

    করোনায় আক্রান্ত নার্স দিয়েই চলছে রোগীর সেবা :- দেখার কেউ নেই

    রাশেদুল ইসলাম রাশেদ, রংপুর বিভাগীয় প্রধান :- লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অসচেতনতায় করোনা ঝুঁকিতে পড়েছেন হাসপাতালটিতে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগী ও তাদের আত্মীয়-স্বজনেরা। করোনাকালেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নেই কোনো সচেতনতা। করোনা আক্রান্ত নার্স আইসোলেশনে থাকার কথা থাকলেও কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পালন করছেন ওয়ার্ডের দায়িত্ব।
    লালমনিরহাট ১০০ শয্যা হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের সিনিয়র সহকারী নার্স শারমিন আফরোজের জ্বর ও কাশি থাকায় গত ২৬ জুলাই করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা থাকলেও তিনি ডিউটি করছেন শিশু ওয়ার্ডে। এরপর গত ২ আগস্টে তার রিপোর্ট পজিটিভ আসলে হোম আইসোলেশনে থাকেন তিনি। কিন্তু সুস্থ হওয়ার আগেই লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাকে ৯ আগস্ট থেকে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ডিউটি করতে হচ্ছে।
    ঘটনা এখানেই শেষ নয়, করোনা আক্রান্ত রোগীকে যে মেশিন দিয়ে প্রেসার মাপা হয়, সে একই মেশিন দিয়ে সাধারণ রোগীকেও প্রেসার মাপছেন হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগ। এমনকি হাসপাতালের প্রবেশ পথে সবার হাত ধোয়ার জন্য নাম মাত্র খালি পানির ড্রাম থাকলেও নেই সেখানে সাবান ও পানির ব্যবস্থা।
    হাসপাতালের এক নারী রোগী জানান, হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট (কার্ডিওলজি) ডা. শংকর কুমার সাহার পরামর্শে হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে প্রেসার মাপতে যান তিনি। কিন্তু সেখানে গেলে তিনি জানতে পারেন, করোনা আক্রান্ত রোগীদের প্রেসার মাপার জন্য যে মেশিন ব্যবহার করা হচ্ছে, সে মেশিন জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার না করে আবার ওই মেশিন দিয়ে সাধারণ রোগীদের প্রেসার মাপা হচ্ছে।
    কিন্তু সেখানে গেলে তিনি জানতে পারেন, করোনা আক্রান্ত রোগীদের প্রেসার মাপার জন্য যে মেশিন ব্যবহার করা হচ্ছে, সে মেশিন জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার না করে আবার ওই মেশিন দিয়ে সাধারণ রোগীদের প্রেসার মাপা হচ্ছে। এতে করে তার মতো সাধারণ আরো অনেক রোগীর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে।
    লালমনিরহাট ১০০ শয্যা হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের সিনিয়র সহকারী নার্স শারমিন আফরোজ জানান, তিনি এখনো পুরোপুরি সুস্থ নন। তার এ কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানানো হলেও তাকে ডিউটি দেয়া হয়েছে। তাই তিনি বাধ্য হয়ে ডিউটি করছেন।
    লালমনিরহাট ১০০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. সিরাজুল ইসলাম  জানান, করোনা পজিটিভ এমন কোনো নার্স শুধু শিশু ওয়ার্ডে নয়, কোনো ওয়ার্ডেই ডিউটি করতে পারবে না। তবে যদি করোনা পজিটিভ কেউ ডিউটি করে থাকে, সে বিষয়টি তার জানা নেই।
    লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডা. নির্মলদু রায়  জানান, করোনা নমুনা দেয়ার পর বা রিপোর্টে পজিটিভ আসার পর যদি কেউ কর্মস্থানে যোগদান করে এটা তার অজ্ঞতা। আর কেউ যদি অসুস্থ থাকে, তাকে কানোভাবেই ডিউটিতে দেয়া যাবে না।

    Most Popular

    বাংলাদেশের ব্যানকোভিড ভ্যা.কসিন নিতে আগ্রহী নেপাল

    ঢাকা, ২২ অক্টোবর- দেশীয় গ্লোব বায়োটেকের ব্যানকোভিড ভ্যা.কসিনের দাম হতে পারে প্রায় সাড়ে তিন হাজার টাকা। এটি সফল হলে বাংলাদেশের চাহিদা মেটানোর পরই...

    আখের পুষ্টিকথা – DesheBideshe

    আখ বা ইক্ষু এই মৌসুমে বেশি পাওয়া যায়। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এর আঞ্চলিক নাম বিভিন্ন। শর্করা আর চিনিতে পূর্ণ আখ। অতিরিক্ত...

    বন্দরে মৃত্যুর একমাস ৫দিন পর ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে কবর থেকে গৃহবধূর লাশ উত্তোলন

    ঢাকা : বন্দরে মৃত্যুর একমাস ৫দিন পর ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে কবর থেকে রোজিনা আক্তার রোজি (৩৩) নামে এক গৃহবধূর লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২২...

    সাতক্ষীরায় জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে চালকদের মাদকমুক্ত রাখতে ডোপ টেস্ট

    আহসান উল্লাহ বাবলু সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি:সাতক্ষীরায় জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে সড়কের বিভিন্ন চালকদের, ডোপ টেস্ট করা হয়। বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার, মোহাম্মদ...